শীর্ষ সংবাদঃ

» একটি সত্য ঘটনা এবং একটা বিশ্বাসের প্রয়োজনীতা – ডাঃ ফারুকুজ্জামান

প্রকাশিত: 13. July. 2020 | Monday

একটি সত্য ঘটনা এবং একটা বিশ্বাসের প্রয়োজনীতা 
ডাঃ ফারুকুজ্জামান
ছোট বেলার একটা ঘটনা।  আমার বয়স তখন ১১ কি ১২ । আমাদের কয়েক বাড়ি পরে ৫-৬ বছরের একটি প্রতিবন্ধী বাচ্চা ছিল। বাচ্চাটির মা মারা যাওয়ার পর তার বাবা আবার বিয়ে করে । তার নতুন মা তাকে খুব মারতো । বিষয়টি আশে-পাশের সবাই কম বেশি জানতাম । মাঝে মাঝে গোঙানির শব্দ পাওয়া যেত। তার সারা শরীরে মারের কাটা-ছেড়া ছাড়াও, গরম খুন্তির ছেকার ঘা-দাগ এসব নিত্তনৈমিত্তিক ব্যাপার । গলার কাছে বেশ কিছু দাগ ছিল (পরিষ্কার গলা টেপার চিহ্ন)। আমার এখনো স্পষ্ট মনে আছে, একদিন দুপুরে বাচ্চাটি বাইরে খেলা করে বেড়াচ্ছিলো। একটু পর বাসায় গেলো । অল্প কিছুক্ষন পর শোনা গেলো, সে মারা গিয়েছে । কারণ অজানা। সামনের খোলা একটি জায়গায় গোসল সেরে, তড়িঘড়ি কবর দেয়া হয় তাকে । খুব ছোট বেলায় দেয়ালের পাশে দাঁড়িয়ে দেখা, নিষ্ঠুর ঘটনাটি।
পেশাগত দিক দিয়ে আমি একজন শল্য চিকিৎসক । “শিশু নির্যাতন” আমার সরাসরি পেশাগত বিষয় নয়। কিন্তু সমাজের একজন নাগরিক, একজন চিকিৎসক হিসাবে আমি এ দায়বদ্ধতা এড়াতে পারি না । কয়েক সপ্তাহ আগে আমার এক শ্রদ্ধেয় সিনিয়র সহকর্মী (যিনি দীর্ঘদিন ধরে এ বিষয়ে কাজ করছেন) এ বিষয়ে আমার দৃষ্টি আকর্ষণ করলেন । তার অনুরোধে ঘাটতে হলো বিগত বছর গুলোর অনেক নথি, তথ্য-উপাত্ত । অবাক হলাম । এখানে যে ঘটনাটা বললাম, তা ছিল ১৯৯৫ কি ৯৬ সালের । আজ ২০২০ । কাগজ-কলমে শিশু নির্যাতনের এই হার অনেকটা কমলেও, তার বাস্তব চিত্র এখনো কোথাও কোথাও ভয়াবহ। গত ২০-২৫ বছরে এমনও অনেক নজির মিললো, যার মাত্রা বিগত দিনগুলো থেকেও মারাত্মক ছিল । অর্থাৎ, বদলে গেছে অনেক কিছু । কিন্তু বদলায়নি অনেক কিছু (কিন্তু যা এসময়ে বদলাবার ছিল) । কোনো কোনো স্থানে আমরা ঠিক সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে আছি, যেখানে আমরা ২৫ বছর আগেও ছিলাম । কিন্তু প্রশ্ন হলো কেন? কেন কিছু মূল্যবোধ এখনো বদলানি? কেন আমরা এই সংকটাপন্ন অবস্থাতেও, করোনা থেকে বাঁচতে পারছি না । কেনই বা এখনো কোথাও কোথাও, করোনা শুধু ব্যবসার একটি মাধ্যম মাত্র ।
নিয়ে যাচ্ছি খ্রিস্টপূর্ব ৪৬০-৩৭৭ সনে। ক্লাসিকাল গ্রিক যুগ l চিকিৎসা বিজ্ঞানের জনক হিপোক্রেটিসের সময়কাল, যার দেয়া শপথ বাক্য পাঠ করে আজও, বিশ্বের সকল প্রান্তের চিকিৎসকগণ তাদের পেশাগত জীবনে প্রবেশ করেন l এর আগে যতদূর পর্যন্ত জানা যায়, চিকিৎসা শাস্ত্রের জন্ম তৎকালীন ধর্মীয় প্রার্থনালয় গুলোতে । বাপ্-দাদার উপাসনালয় ভিত্তিক আসা চিকিৎসা সেবাকে হিপোক্রেটিস চেষ্টা করলেন বৈজ্ঞানিক রূপ দিতে l আমি ভুল না বললে, একারণে তাকে তার জন্মস্থান হতে বিতাড়িত হতে হয় । এবং যারা তাকে একদিন বিতাড়িত করেছিল, তারাই তাকে বীরের বেশে আবার ফিরিয়ে এনেছিল সেখানে l আসলে এখানে ভুল বোঝাবুঝিটা কোথায় হয়েছিল? হিপোক্রেটিস একবারও মানুষের বিশ্বাস কিংবা ধর্মকে চিকিৎসা শাস্ত্রের সামনা-সামনি এনে দাঁড় করেননি, বরং সৃষ্টিকর্তা কর্তৃক প্রদত্ত জ্ঞানকে বিজ্ঞান সম্মত ভাবে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন মাত্র l যেখানে মানুষ তাকে প্রথমে বুঝতে ভুল করে l আসলে বিজ্ঞান হলো প্রমাণ ভিত্তিক বিশ্বাস l আর ধর্ম হলো বিশ্বাস ভিত্তিক প্রমাণ l বিজ্ঞান হলো ধর্মের সেই অতি ক্ষুদ্র অংশ, যা আমাদের জ্ঞানে প্রমাণিত । আর সকল বিশ্বাসকে কখনোই প্রমাণ করা সম্ভব নয় (অপ্রয়োজনীয়ও বটে) l কারণ আমাদের জ্ঞান অতি সীমাবদ্ধ l তৎকালীন গ্রীসের মানুষ শুরুতে এই সত্যটাই উপলব্ধি করতে ব্যর্থ হয়েছিল । আমরা এখনো তাই করে চলেছি ।
ইতিহাস বলে, হিপোক্রেটিসের জীবদ্বশায় চিকিৎসা শাস্ত্র কয়েক সহস্রাব্দ এগিয়ে যায় । পরবর্তীতে তিনি এতটাই জনপ্রীয়তা লাভ করেন যে, সে সময়ের প্রদত্ত প্রায় সকল চিকিৎসা পদ্ধতি (যা তার লেখা বা অন্য কারো লেখা), তার নামেই প্রচারিত হয় । যা “Hippocratic Corpus” নামক মহা গ্রন্থে আলেক্সান্ড্রিয়া-এর কোনো এক লাইব্রেরিঅ্যান কর্তৃক পরবর্তীতে লিপিবদ্ধ হয়। বিশ্বাস না হলে পড়ে দেখতে পারেন “Corpus Hippocraticum”. কি বলা হয়েছে তাতে?
এবার মোদ্দা কথায় আসি । “No matter, what you believe, again I say, should we renew our faith or destroy it to seal our fate?” একবার স্বীয় রবের কাছে আত্মসমর্পণ করে দেখুন না কি হয়? দেখুন না করোনা আতঙ্ক থেকে বাঁচতে পারেন কিনা? করোনাকে ব্যাবসার মাধ্যম ভাবার চিন্তা মনে আর স্থান পায় কিনা? দেখুন না “শিশু নির্যাতন” সমাজে আর রোজকার অভিশাপ হয়ে দাঁড়ায় কিনা? শুধু সামাজিক মূল্যবোধই নয়, চিকিৎসা বিজ্ঞান সম্পর্কে আপনার এতো দিনের ধারণাই বদলে যাবে, আশা করি। “আপনার বিশ্বাসই আপনাকে রক্ষা করুক ।”
ডাঃ ফারুকুজ্জামান,
FCPS, MS, MRCS, MCPS,
সার্জারি বিশেষজ্ঞ, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১২৪০ বার

error: Content is protected !!